Thursday, August 5, 2010

১৯শের খোঁজেঃ বিজয় কুমার ভট্টাচার্যের গদ্য গ্রন্থ


          শির দশকের শুরু থেকেই বরাকউপত্যকার বাংলা কবিতার ভূবনে বিজয় কুমার ভট্টাচার্য একটি উজ্জ্বল নাম। জন্মঃ ১৯৫৯ সালের ২৭শে জুলাই। শিলচরে। পিতার নামঃ প্রয়াত অক্ষয় কুমার ভট্টাচার্য। তিনি ছিলেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক। মাতার নামঃ প্রয়াত জ্যোৎস্নারাণী ভট্টাচার্য। মা ছিলেন কালাইন বাগানের মিডওয়াইফ। শৈশবেই পিতাকে হারিয়েছেন। মাকে সম্প্রতি। পঞ্চমমান শ্রেণির ছাত্রাবস্থায় শিলচর থেকে প্রকাশিত ‘প্রান্তজ্যোতি’ পত্রিকায় বিজয়ের প্রথম কবিতা বের হয় ,ভোরের কুহেলা সুকান্ত’। মা-র কাছ থেকেই বিজয় পেয়েছেন কবিতা লেখার সকল অনুপ্রেরণা। রামায়ণ-মহাভারত থেকেই ছন্দোবদ্ধ কাবিতার কৌশল শিখে শিশু বিজয় মাকে শোনাতে হতো এক একটি স্বরচিত কবিতা।
                    এ পর্যন্ত তাঁর ১১টি কবিতার সংকলন প্রকাশিত হয়েছে। সংকলনগুলো হলোঃ পুড়ে পুড়ে স্বর্ণ হোক সন্মিলিত পাপ (১৯৮৪), আমার কন্ঠস্বর ( ১৯৮৬),সন্দীপ দ্বীপের গল্প ( ১৯৮৮), তোমাকে নিয়েই অবশেষে (১৯৮৮), সুখদুঃখের কবিতা (১৪৭টি অনু কবিতার সংকলন, ১৯৯৭), ধর্ম সংকট (২০০১), নীল পাহাড়ের গল্প -০১(২০০২) , গল্পের শেষ পর্ব (২০০৪), এবং অসংলগ্ন, ছিন্ন কথামালা...(২০০৬)।
    ‘শিল্প আর  সংগ্রামের সমন্বয়ে লেখা হয় সার্থক কবিতা’। এটা বিজয়ের বিশ্বাস। রচিত কবিতা সংকলনগুলিতে রয়েছে তারই যথার্থ প্রতিফলন। মুক্ত মনের মুক্ত নিবন্ধ রচনায়ও তাঁর নৈপুন্য রয়েছে। তাঁর দু’টি নিবন্ধ সংকলন হল ‘সাম্রাজ্যের খোঁজে নিরন্তর’(২০০৩) ও ‘ভাষা সংগ্রামের উৎস সন্ধানে এবং অন্যান্য’ (২০০৫)।
পেশাগত দিক থেকে বিজয় সাংবাদিক। প্রায় দেড় দশক একাধিক কলেজে বাংলা বিভাগে শিক্ষকতার কাজ করেছেন গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের এই স্নাতকোত্তর। আসাম বিশ্ববিদ্যালয়ের  প্রকাশনা বিভাগের সঙ্গে এখন যুক্ত আছেন। বিজয় মনে করেন, আধুনিক কবিতা মানে দুর্বোধ্যতা নয়, আবার ছন্দোহীনতাও নয়। কষ্টকল্পনা তো নয়ই।
                       সাংবাদিকতার ক্ষেত্রেও বিজয়ের উজ্জ্বল ভূমিকা রয়েছে। মা-র কাছ থেকে শৈশবেই বরাকের বাংলা ভাষা সংগ্রামের ইতিহাস শুনেছেন বিজয়। ১৯৬১র ভয়ঙ্কর সেই দিনগুলির সময় বিজয়ের মা শিলচরের নারী শিক্ষাশ্রমে নার্সিঙের ট্রেনিং নিচ্ছিলেন। তাই ১৯শের মে’র চেতনা বিজয়ের মজ্জাগত। সব মিলিয়ে ঐতিহ্যের উত্তরাধিকার নিয়ে যেতে চান বিজয়।নিচে পড়তে পাবেন বইটি, ইচ্ছে মতো পুরো পর্দা জুড়ে ছড়িয়ে নিয়ে, নামিয়ে বা না নামিয়ে নিয়ে।19sher Khoje--Bijay Bhattacharjya

3 comments:

  1. Bijoy Da'r boi porte bhalo lage, bisesh kore kobita....

    ReplyDelete
  2. Bijoy Da'r boi porte bhalo lage... Bisesh kore kobita.... Bijoy Da chaliye jao... -Raju

    ReplyDelete
  3. ধন্যবাদ রাজু, আপনাদের সহযোগিতা পেলে কাজটি আরো এগুবে!

    ReplyDelete

Related Posts with Thumbnails